বিশনন্দী ঘাট সদাসদি জমিদার বাড়ি

মেঘনা পাড়ের বিশনন্দী ঘাট ভ্রমণ

ঢাকার অদূরে আড়াই হাজারে বিশনন্দী ঘাট। ঢাকা থেকে দিনে গিয়ে দিনেই বেড়িয়ে আসা যায়। এখানে আছে শত বছরের পুরনো জমিদার বাড়ি, মাইলখানেক লম্বা সাদা বালির বীচ আর মেঘনার স্বচ্ছ টল-টলে জল। অবারিত প্রান্তর, নদীর মাঝখানে জেগে ওঠা অনিন্দ্য সুন্দর স্বপ্নদ্বীপ আর কোলাহল থেকে দূরে সতেজ মুক্ত বাতাসে একটা দিন কাটাতেই আমাদের এই আয়োজন। আপনি আমন্ত্রিত।
গ্রিন বেল্ট এর বিশেষত্ব হলো- গ্রিন বেল্ট মূলত কাজ করে ফ্যামিলি ট্যুরিজম নিয়ে। নারীদের ছোটখাটো সুবিধা-অসুবিধা বিবেচনায় রেখেই আমরা ট্যুরের প্ল্যানিং করে থাকি। কর্পোরেট ট্যুরের ক্ষেত্রেও দেশের শীর্ষস্থানীয় মাল্টিন্যাশনাল হাউজগুলো ভরসা রেখেছে আমাদের উপর।

গন্তব্যঃ মেঘনা পাড়ের বিশনন্দী ঘাট

যাত্রার তারিখ :

ট্যুর ১: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
ট্যুর ২: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
ট্যুর ৩: ১ অক্টোবর ২০২১

❑ ভ্রমণের স্থান সমুহ :
⦿ ১০১ কক্ষ বিশিষ্ট সদাসদি জমিদার বাড়ি
⦿মেঘনার সাদা বালির চর।
⦿ স্বপ্নদ্বীপ
⦿ শতবর্ষী বট গাছ।
⦿ কায়াকিং

ভ্রমণ খরচ
❑ জনপ্রতি ১৭৫০ টাকা।

❑ এই ট্যুর প্যাকেজে যা থাকছে

AC Tourist BUS
সকালের নাস্তা, দুপুরে নদীর তাজা মাছ ও মুরগীর রোস্ট দিয়ে লাঞ্চ, সন্ধ্যার স্ন্যাকস।
ইঞ্জিন বোট ভাড়া।

বিশনন্দী ঘাট ভ্রমণের সম্ভাব্য বর্ণনা

ভ্রমনের জন্য আমাদের সাথে সার্বক্ষনিক থাকছে AC বাস। ট্যুরের দিন সকাল ৭ঃ৩০ টায় বাস গুলিস্তান থেকে ছাড়বে। ফার্মগেট পৌঁছাবে ৮ঃ০০ টায়। মিরপুর ১০ হতে ছেড়ে যাবে ৯ঃ০০ টায়, ৯ঃ৪৫ টায় এয়ারপোর্ট পৌঁছাবে এবং ১০ঃ১৫ মিনিটে কুড়িল বিশ্বরোডের পূর্বাচল যাওয়ার ফ্লাইওভারের শেষাংশে থাকবে। এসব স্টপেজের সুবিধামত স্থান থেকে বাসে উঠতে পারবেন। যাদের বাসা মহাখালি, গুলশান বা বাড্ডা তারা কুড়িল-পূর্বাচল ফ্লাইওভারের ডাউন লুপ থেকে বাসে উঠতে পারবেন।
 
প্রথমে আমরা যাবো ১০১ কক্ষ বিশিষ্ট সদাসদি জমিদার বাড়ি। এরপর নদীর ঘাটে নেমে ইঞ্জিন বোটে করে চলে যাবো মেঘনার সাদা বালির চরে। সেখানে পানিতে দাপা-দাপি শেষে আমাদের গন্তব্য নদীর মাঝখানে জেগে উঠা স্বপ্নদ্বীপ। এখানে ফ্রেশ হয়ে দুপুরের খবার খেয়ে পুরো স্বপ্নদ্বীপ ঘুরে দেখবো আমরা। কেউ চাইলে এখানে শেষ বিকেলে সূর্যাস্ত দেখতে দেখতে কায়াকিং করতে পারবেন।

❑ কনফার্ম করার ডেডলাইন: আসন ফাঁকা থাকা সাপেক্ষে যাত্রার তারিখের কমপক্ষে ২ দিন আগে পর্যন্ত বুকিং কনফার্ম করা যাবে।

❑ কনফার্ম করতে চাইলে ডেডলাইনের মধ্যে জনপ্রতি ১০০০ টাকা ডিপোজিট করতে হবে।

❑ বাসের আসন বণ্টনের ক্ষেত্রে আগে বুকিং দিলে আগে পাবেন ভিত্তিতে দেয়া হয়। তবে সম্মানিত সিনিয়র সিটিজেন (বৃদ্ধ)গনকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়।

❑ চাইল্ড পলিসি: ০ থেকে ৩ বছরের শিশুদের জন্য ফ্রি এবং ৩+ থেকে ৫ বছরের শিশুদের জন্য আলোচনা স্বাপেক্ষে ছাড় প্রযোজ্য হবে।

❑ লক্ষ্যনীয়: পরিচ্ছন্ন ওয়াশ রুমের ব্যবস্থা থাকবে। ফিমেইল ট্রাভেলারদের ড্রেস চেঞ্জের ব্যাবস্থা থাকবে। কায়াকিং খরচ ব্যক্তিগত।

জমিদার বাড়ির অনেকগুলো ভবনের একটি

❑ উল্লেখযোগ্য
⦿ আমাদের কোনো ট্যুরেই কোন হিডেন চার্জ নেই।
⦿ গ্রিন বেল্টের বিভিন্ন ট্যুর শেষে ট্রাভেলারদের ফিডব্যাক জানতে ও ট্যুরের ছবি দেখতে জয়েন করতে পারেন উন্মুক্ত ট্রাভেল আড্ডার গ্রুপ Green Belt The Travelers‘এ। আরো বিস্তারিত জানতে ইনবক্স করুন আমাদের ফেসবুক পেজ গ্রিন বেল্ট – Green Belt ‘এ।

❑ আমাদের অভিজ্ঞতা : ২০১৬ সালে গ্রিন বেল্ট ট্যুরিজম যাত্রা শুরু করে। এরপর গত ৫ বছরে গ্রিন বেল্ট সাফল্যের সাথে পরিচালনা করেছে ১০০০ এরও বেশি ট্যুর। এর মধ্যে বিশনন্দী ঘাট বাদেও সাজেক ভ্যালি, কক্সবাজার, সেইন্টমার্টিন, রাঙ্গামাটি, সুন্দরবন, টাঙ্গুয়ার হাওর, বান্দরবান সহ অনেকগুলো ডেস্টিনেশন রয়েছে। দেশের বাইরে মূলত সিকিম, দার্জিলিং, মেঘালয়, ভূটান ও কাশ্মীর ট্যুর পরিচালনা করে গ্রিন বেল্ট। প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে বাংলাদেশ সচিবালয়ের বিভিন্ন মাননীয় সচিব থেকে শুরু করে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন, টেকনোভিস্তা, ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল, কোকাকোলা (আব্দুল মোনেম লিঃ), রক্সি পেইন্ট, ডাচ বাংলা, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, সহ ১২ টি ব্যাংকের বিভিন্ন ব্রাঞ্চ, পঙ্গু হাসপাতালের ডাক্তারগন, ঢাকা মেডিকেল, আসগর আলী মেডিক্যাল সহ বিভিন্ন মেডিকেলের ডাক্তারগণ আমাদের কর্পোরেট ট্যুর সার্ভিস নিয়েছেন।

বুকিং মানি জমা দেওয়ার পদ্ধতি
১. সরাসরি অফিসে এসে বুকিং মানি জমা দেয়া যাবে।
শাহ-আলী প্লাজা, ১৪ তলা, মিরপুর ১০ নাম্বার সার্কেল।

২. বিকাশ ও ডাচ বাংলা ব্যাংকের রকেট করা যাবে।
৩. ব্যাংক ডিপোজিট করে বুকিং করা যাবে।

যোগাযোগ :

0188 4710 723
0186 9649 817
0188 6363 232

আরো ট্যুর প্যাকেজ দেখুন